Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন


    সরকারি ছুটির দিনসহ সপ্তাহে প্রতিদিন সকাল ০৯.০০ টা হতে দুপুর ১২.০০ টা এবং দুপুর ০১.০০ টা হতে বিকেল ০৪.০০ টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে কারাগারে আটক বন্দীগন তাদের আত্নীয় স্বজনের সাথে সাক্ষাৎ করতে পারেন।

     কারাগারের প্রধান ফটকে ওকালতনামার বক্স রয়েছে। সেখানে বন্দীদের আইনজীবি এবং আত্নীয় স্বজন ওকালতনামার, ভোকালতনামার প্রদানের ০১ ঘন্টার মধ্যে বন্দীদের স্বাক্ষর নিয়ে সত্যায়নপূর্বক তা ফেরৎ প্রদান করা  হয়।

   সরকার কর্তৃক নির্ধারিত এবং জেল কোর্ড মোতাবেক বন্দীদের সকাল, দুপুর এবং রাতের খাবার যথাসময়ে পরিবেশন করা হয়।

    প্রতি সপ্তাহের সোমবার সকাল ১০.০০ টা হতে ১১.০০ টা পর্যন্ত সিনিয়র জেল সুপারের উপস্থিতিতে  বন্দীদের আত্নীয় স্বজনের সুবিধা অসুবিধার  বিষয়ে গণশুনানী করা হয়।

    বিজ্ঞ আদালতের আদেশ বন্দীদের নিয়মিত আদালতে হাজির করা হয়।

    বিজ্ঞ আদালতের আদেশ মোতাবেক তাদের যথাসময়ে জামিনে ও সাজার মেয়াদশেষে মুক্তি দেয়া হয়।

    অত্র কারাগারের সহকারি সার্জনের মাধ্যমে প্রর্ত্যক বন্দী কারাগারে আসার পর দিন সকালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। যদি বন্দী অসুস্থ্য হয় তবে তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা প্রদান করা হয়। প্রয়োজনে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল,বরিশালে প্রেরন করে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

    বন্দী ও তাদের আত্মীয় স্বজনের অবগতির জন্য কারা প্রধান ফটকে সিটিজেন চাটার ব্যানার আকারে লাগানো রয়েছে।

    গরীব অসহায় বন্দীদের মামলা পরিচালনার জন্য লিগ্যাল এইড, প্যারা লিগ্যালের মাধ্যমে তাদের মামলা পরিচালনা করা হয়।

    কারাভ্যন্তরে বন্দীদের মুক্তির পরবর্তী পূর্ণবাসনের জন্য ইলেক্ট্রিক, কাঠ, তাঁত, সেলাইসহ বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

    কারাগার থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত বন্দীগণ যাতে কোন ধরনের অন্যায়ের সাথে জড়িয়ে না পরে এজন্য নিয়মিত তাদের জন্য মোটিভেশনাল বক্তব্য প্রদান করা হয়।

 
   অশিক্ষিত বন্দীদের জন্য গণশিক্ষা এবং ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থা চলমান আছে।

    কারাভ্যন্তরে থাকাকালীন বন্দীদের পড়ার জন্য কারা লাইব্রেরী হতে বিভিন্ন ধরনের ধর্মীয়, উপন্যাস, গল্প, ঐতিহাসিক, কবিতা  ইত্যাদি বই প্রদান করা হয়।

    বিশেষ বিশেষ দিবসগুলোতে বন্দীদের জন্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

    বন্দীদের বিনোদনের জন্য টিভি, কেরাম , লুডু, ভলিবলসহ বিভিন্ন ধরনের খেলার ব্যবস্থা রয়েছে।

   বন্দীদের আত্মীয় স্বজন যাতে কোন প্রয়োজনে কারা কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে পারে সে জন্য কারা প্রধান ফটকসহ বিভিন্ন জায়গায় সিনিয়র জেল সুপার ও জেলারের দাপ্তরিক টেলিফোন ও মোবাইল নম্বর দেওয়া রয়েছে।

    দেখা স্বাক্ষাৎ করতে আসা বন্দীদের আত্মীয় স্বজনের জন্য বিশ্রামাগার রয়েছে এবং কিছুটা বিনোদনের জন্য সেখানে টেলিভিশন রয়েছে।